News Section:

সৈয়দ মখলিছুর রহমান স্মৃতি সংসদের বার্ষিক বৃত্তি প্রদান ও সংবর্ধনা

"শিক্ষাক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকার দিন শেষ" সৈয়দ মখলিছুর রহমান স্মৃতি সংসদের বার্ষিক বৃত্তি প্রদান ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি মজিদ খান
এমপি এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান বলেছেন, সরকারের চার বছরের সাফল্যগাঁথায় সবচেয়ে যুগান্তকারী সাফল্য হচ্ছে শিক্ষাক্ষেত্র। আর এর ঢেউ লেগেছে বানিয়াচঙ্গেও। পাশের হার ৩৪ থেকে আজ ৯৯ ভাগের উপরে উন্নীত হয়েছে। শিক্ষার্থী ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। বর্তমান সরকারের বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে শিক্ষাক্ষেত্রে বিরাট পরিবর্তন এসেছে। সরকারের পাশাপাশি এলাকার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনও শিক্ষার প্রসারে কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষাক্ষেত্রে বানিয়াচঙ্গ পিছিয়ে থাকার দিন শেষ। দীর্ঘ ৮ বছর ধরে সৈয়দ মখলিছুর রহমান স্মৃতি সংসদ এলাকার কৃতি শিক্ষার্থীদেরকে সংবর্ধনা ও বৃত্তি দিয়ে পড়াশোনায় অনুপ্রাণিত করছে। সেটা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। এজন্য স্মৃতি সংসদের সংশ্লিষ্ট সবাইকে তিনি সাধুবাদ জানান।
গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে সৈয়দ মখলিছুর রহমান স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থীদের বার্ষিক বৃত্তি প্রদান ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন হবিগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর জাহান আরা খাতুন। স্বাগত বক্তব্য দেন স্মৃতি সংসদের সভাপতি আ.ন.স হাবীবুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএনও মোঃ সফিউল আলম, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন মাস্টার, ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী, জালাল উদ্দিন খন্দকার।
অনুষ্ঠানে ২০১২ সালের জেএসসি ও পিএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ৩৮ শিক্ষার্থীর মাঝে ক্রেস্ট, মুক্তিযুদ্ধের বই ও সনদপত্র বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ। এছাড়া উপজেলার সেরা ৩টি স্কুল যথাক্রমে পুরানবাগ, রায়েরপাড়া ও শরীফখানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণকেও পুরস্কৃত করা হয়।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন শিক্ষা কর্মকর্তা পরিমল সিংহ, কোম্পানিগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম, সিলেট হলিসিটি কলেজিয়েট স্কুলের প্রিন্সিপাল সৈয়দ মহিবুর রহমান, শিক্ষক আব্দুর রউফ, হাবিবুর রহমান, শাহিনা খানম, শিক্ষার্থী সানজিদা আক্তার স্মৃতি, নাদিয়া সুলতানা, হাবিবুন নাহার প্রমূখ।